×
  • প্রকাশিত : ২০২২-১১-২৩
  • ৩০ বার পঠিত
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, একুশে পদকপ্রাপ্ত নাট্যব্যক্তিত্ব মঞ্চসারথি আতাউর রহমান বলেছেন, ‘বর্তমান বৈশ্বিক বাস্তবতায় আওয়ামী লীগ সভাপতি সিদ্ধান্ত দিয়েছেন আসন্ন সম্মেলন এক দিনেই সমাপ্ত হবে। যাতে সার দেশ থেকে আগত কাউন্সিলর, ডেলিগেট ও নেতাকর্মীদের কষ্ট লাঘব হয় এবং দল হিসেবে আওয়ামী লীগও কৃচ্ছ্রসাধনের দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারে। নেত্রীর এমন বার্তাকে বিবেচনায় নিয়ে আমাদের অনুষ্ঠানসূচি সাজাতে হবে। ’

আজ বুধবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে গঠিত সংস্কৃতি বিষয়ক উপকমিটির সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত সদস্যরা আসন্ন ২২তম জাতীয় সম্মেলনকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হিসেবে বর্ণনা করেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও সংস্কৃতি বিষয়ক উপকমিটির সদস্যসচিব অসীম কুমার উকিল এমপির সঞ্চালনায় আজকের সভায় উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ মতামত ব্যক্ত করেন আসাদুজ্জামান নূর এমপি, গোলাম মোস্তফা সুজন, সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, শুভ্র দেব, চারুশিল্পী কামাল পাশা চৌধুরীসহ আরো অনেকে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্দেশনা অনুযায়ী আসন্ন সম্মেলনের দিন সারা দেশ থেকে আগত নেতাকর্মীদের সামনে পরিবেশনের জন্য দুই পর্বে রয়েছে দুটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। প্রথম পর্বটি সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্যায়ে এবং দ্বিতীয় পর্বটি হবে একই দিন সন্ধ্যায় ‘সাংস্কৃতিকসন্ধ্যা’ নামে।

প্রথম পর্বটির সময়কাল হবে মাত্র ৩০ মিনিট। যেখানে বাংলা ও বাঙালির সকল অর্জনের নেতৃত্ব দেওয়া রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, মহান মুক্তিযুদ্ধ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা এবং বাঙালি সংস্কৃতির চিরকালীন ঐতিহ্যকে নানা মাধ্যমে পরিবেশিত হবে।

দ্বিতীয় পর্বে থাকবে সংগীত, আবৃত্তি, ক্ষুদ্র নাটিকা এবং অন্যান্য। মঞ্চসারথি আতাউর রহমান ও অসীম কুমার উকিলের তত্ত্বাবধানে প্রথম পর্বটি আয়োজনের নেতৃত্ব দেবেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলি লাকী এবং দ্বিতীয় পর্বটির আয়োজনে নেতৃত্ব দেবেন সংগীতশিল্পী রফিকুল আলম, শুভ্র দেব ও এস ডি রুবেল। চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদকে উপস্থাপনার দায়িত্ব দেওয়া হয়।

আসাদুজ্জামান নূর এমপি বলেন, ‘সংস্কৃতি মানেই নাচ-গান নয়। আমরা রাজনীতিবিদরা মাঠেঘাটে বহু বক্তৃত্বা করেও যেখানে মানুষের মন জয় করতে পারি না, সেখানে একটি গণসংগীত বা কবিতা আবৃত্তি ঠিকই মানুষের মন জয় করে নিতে সক্ষম হয়। এ কথাটা বিবেচনায় নিয়েই আমাদের অনুষ্ঠানমালা তৈরি করতে হবে। ’

অসীম কুমার উকিল এমপি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানে বাংলাদেশের সম্মেলন, আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পুনর্জাগরণ, আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানে ১৬ কোটি মানুষের নতুন স্বপ্নের বুনন, নতুন ভোরের হাতছানি। কারণ এ দেশে একমাত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই মানুষের জীবনমানের উন্নয়নের পাশাপাশি সংস্কৃতির বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। ’

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সম্মেলন উপলক্ষে গঠিত সংস্কৃতি-বিষয়ক উপকমিটির সদস্য সাইদ আহমেদ বাবু, সুব্রত চন্দ, মিজানুর রহমান সজল, রতন কুমার দত্ত, পদ্মামতী দেবী, তাহেরুল হাসান শিবলী, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, সনজীব দাস অপুসহ আরো অনেকে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...
ক্যালেন্ডার...

Sun
Mon
Tue
Wed
Thu
Fri
Sat